মধ্যযুগীয় বর্বরতার শিকার এযুগেও এক গৃহবধূ।পরকীয়া সন্দেহে স্ত্রীকে মাথা ন্যাড়া করে মারধোর এমনকি প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি

0
3

মধ্যযুগীয় বর্বরতার শিকার এযুগেও এক গৃহবধূ।পরকীয়া সন্দেহে স্ত্রীকে মাথা ন্যাড়া করে মারধোর এমনকি প্রাণে মেরে ফেলার হুমকির অভিযোগ স্বামী এবং শাশুড়ির বিরুদ্ধে।কোনমতে পালিয়ে এক আত্মীয়ের সহযোগিতায় পুলিশের দ্বারস্থ গৃহবধূ।পলাতক অভিযুক্তরা।ঘটনাটি ঘটেছে হাবড়া থানার সোনাকেনিয়া সরদার পাড়া এলাকায়।অভিযুক্ত স্বামীর নাম সুনীল সরদার এবং শাশুড়ি আরতী সরদার।গৃহবধূ কল্পনা সরদারের অভিযোগ,তিন বছর আগে দেখাশোনা করে বসিরহাট পুলিশ জেলার মিনাখা থানা বকচরা গ্রামের বাসিন্দা কল্পনা সরদার এর সঙ্গে হাবরা সোনাকানিয়া এলাকার সুনীল সরদার এর বিয়ে হয় দুজনের একটি দেড় বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। অভিযোগ বিয়ের এক বছর পর থেকেই স্বামী সুনীল এবং তার মা আরতী মিলে গৃহবধূ কল্পনাকে বিভিন্ন কারনে মাঝেমধ্যেই মারধোর করতো।পরবর্তীতে মেয়ের জন্মের পর থেকে সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে তবুও মুখ বুজে সমস্ত অত্যাচার সহ্য করেছিলেন গৃহবধূ। ঘরের দরজা বন্ধ করে স্বামী সুনীল সরদার এবং তার মা আরতি সর্দার দুজন মিলে গৃহবধূর পরকীয়া সন্দেহে বেধড়ক মারধর করেন এবং ধারালো ব্লেড দিয়ে গৃহবধূর মাথার চুল ন্যাড়া করে দেয় এবং ঘর থেকে বের হলে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয়‌ বলে অভিযোগ যদিও কোনমতে তাদের হাত থেকে সন্ধ্যার পর পালিয়ে পাশ্ববর্তী গ্রামের তাঁর দূর সম্পর্কের আত্মীয় গোষ্ঠ সরদার নামে এক কাকার বাড়িতে আশ্রয় নেয় পরবর্তীতে ঐ আত্মীয় এবং গ্রামবাসীদের সহযোগিতায় গৃহবধূ   রাতে হাবরা থানার পুলিশের দ্বারস্থ হন এবং লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।অভিযোগ পেয়ে হাবড়া থানার পুলিশ অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়।যদিও ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা গাঁ ঢাকা দিয়েছেন।গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে হাবরা থানার পুলিশ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে