বাংলার বিকাশ দিদি আর ভাইপোর বিকাশেই আটকে আছে – যোগী ।

0
17

রবিবার দুপুরে চন্দননগরের বিজেপি প্রার্থী দীপাঞ্জন গুহর সমর্থনে মেরীর মাঠে এক জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বলেন, বিজেপি সরকার যা ক্তহা দেয় তা রাখে । যার জন্য কেন্দ্রীয় সরকার বা উত্তরপ্রদেশ সরকার সহ দেশের অন্যান্য বিজেপি শাসিত রাজ্য গুলি তাদের দেওয়া কথা রেখেছে । যেমন উওরপ্রদেশে রেল, এয়ারর্পোট, এইমস হলেও বাংলায় কিছুই হয় নি বাংলার উন্নয়ন বা বিকাশ শুধু দিদি ও তার ভাইপোর বিকাশেই আটকে আছে বলেও এদিন তিনি কটাক্ষ করেন । এদিন তিনি শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির প্রসঙ্গ টেনে এনে বলেন, ১৯৫২ সালে কেন্দ্রের কংগ্রেস সরকার যখন একই দেশে দুটি আইন বা ৩৭০ ধারা লাগু করে তখন তার বিরোধ করেছিলেন শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি । ২০১৪ সালে কেন্দ্রে বিজেপি সরকার আসার পর নরেন্দ্র মোদি ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার যে কথা দিয়েছিলেন তা তিনি রেখেছেন । শুধু তাই নয় অযোধ্যায় রাম মন্দিরও তৈরির কাজ শুরু হয়েছে । এদিন তিনি আরও বলেন তিনি রাম ও কৃষ্ণের জন্মভূমি থেকে রামকৃষ্ণ, নেতাজীর জন্মভূমিতে এসে ধন্য । তিনি বলেন, বাংলার মাটি গোটা দেশে শুধু জাতীয়তাবাদ নয় আধ্যাত্মিক চেতনাকেও প্রশস্ত করেছে । কিন্তু বর্তমানে সেই বাংলায় শুধুই গুন্ডারাজ, অরাজকতা চলছে । আর তাই এই পরিস্থিতি থেকে বাংলাকে মুক্তি দেওয়ার সংকল্প নিয়েছে বিজেপি । এদিন যোগী মুখ্যমন্ত্রী ও তার দলের কর্মীদের উদ্দেশ্যে আক্রমণাত্মক ভাষায় বলেন, সংবিধানের শপথ নিয়ে ১০ বছর আপনি মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন তৃণমূলের গুন্ডারা আমাদের অনেক কার্যকর্তাদের খুন করছে । এই তৃণমূলের গুন্ডাদের সনাক্ত করতে আর মাত্র ২৮ দিন বাকি । উত্তরপ্রদেশের গুন্ডারা অনেকেই এখন হয় জেলে না হলে যমলোকে । এখানেও সেই একই দশা হবে । ২ মের এই গুন্ডাদের খুঁজে পাওয়া যাবে না । আর বিজেপি যা বলে তা করে দেখায় । পাশাপাশি বিভিন্ন পুজো ও তার বিসর্জন শোভাযাত্রা নিয়ে তৃণমূল সরকারের ভূমিকা নিয়েও এদিন প্রশ্ন তুলে যোগী বলেন, এই সরকার দুর্গাপূজা, লক্ষ্মীপূজা, সরস্বতীপূজা, হোলি হতে দেয় না । এক সময় উত্তরপ্রদেশেও এই অবস্থা থাকলেও এখন সম্পূর্ণ চিত্র পালটে গেছে বলেও তিনি জানান । পাশাপাশি তিনি এও বলেন, এখন উত্তরপ্রদেশের সাধারণ মানুষ আয়ুষ্মান ভারত, সরকারি চাকরি, গরিবদের জন্য বিনামূল্যে রেশন, প্রধানমন্ত্রী কৃষক সুরক্ষা নিধি, সরকারি আবাসন সহ সমস্ত সুবিধা পান । কিন্তু সেখানে গত ১০ বছরে বাংলায় অসংখ্য কৃষক আত্মহত্যা করলেও তাদের দুঃখের কথা শোনেন না মমতা দিদি । কারণ তিনি কৃষকদের সঙ্গে নয় গুন্ডাদের সঙ্গে আছেন । তিনি এদিন আরও বলেন বাংলায় বিজেপি সরকার এলে এখানেও বিকাশ হবে, যুব সম্প্রদায়ের চাকরি হবে, কৃষকরা কিষান সুরক্ষা নিধির সুবিধা পাবে । এমনকি বিগত ৩৪ বছরে বামেরা ও বিগত ১০ বছরে তৃণমূল বাংলাকে যেভাবে পিছিয়ে দিয়েছে তার উন্নয়ন হবে । পাশাপাশি এদিন যোগী সরকারি কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, এখানেও সপ্তম পে কমিশন চালু হবে । এদিন আবারও নন্দীগ্রামের প্রসঙ্গ টেনে এনে যোগী বলেন, যেখানে একজন মুখ্যমন্ত্রী একটি বুথে ২ ঘন্টা বসে থাকেন সেখানে এটাই স্বাভাবিক যে তিনি হার স্বীকার করে নিয়েছেন । পাশাপাশি এদিন তিনি কটাক্ষ করে বলেন, এই সব নেতারা জিতলে ইভিএম মেশিনকে ভগবান মানেন আর হেরে গেলেই সেই ইভিএম মেশিনকে গালি দেন । এপ্রসঙ্গে রাহুল গান্ধীর আমেঠিতে হেরে যাওয়ার পর ইভিএম নিয়ে দেওয়া প্রতিক্রিয়ার টেনে এনে বলেন, এখান থেকে তাদের পরিবারের সদস্যরা জিতে প্রধানমন্ত্রী হলেও তিনি আমেঠিতে কোনো কাজ না ক্রায় যেমন সেখানকার মানুষ তাকে হারিয়ে শিক্ষা দিয়েছিল বাংলাতেও তাই হবে ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে