ন্যাকা কান্না কাঁদলে হবে না । সাহস না থাকলে তৃণমূলের এজেন্ট হবেন না । খানাকুলে আক্রমণাত্মক মমতা ।

0
41

রবিবার হুগলির খানাকুলের জনসভা দিয়েই ভোটের প্রচার শুরু করলেন মমতা ব্যানার্জি । এদিন বেলা প্রায় সাড়ে এগারোটা নাগাদ খানাকুলে পৌঁছান মুখ্যমন্ত্রী । এদিনও প্রথম থেকেই আক্রমণাত্মক ভাষায় বিজেপিকে আক্রমণ করার পাশাপাশি রাজ্যবাসীর পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দেন তিনি । তিনি বলেন, আরামবাগে ৪০ কোটি টাকার মাস্টার প্ল্যান তৈরির কাজ শুরু হয়ে গেছে । আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই বাড়িতে বাড়িতে জল পৌঁছে যাবে । অন্যদিকে এদিন অভিযোগ তুলে মমতা বলেন, বিজেপির কথা শুনে কেউ কেউ দালালি করছেন । এমনকি নির্বাচন কমিশনকেও এদিন আক্রমণ করে বলেন, রোজ পুলিশ অফিসার বদল করা হচ্ছে । এমনকি বিজেপির কথায় পোলিং এজেন্টের নিয়ম শিথিলন করেছে কমিশন এই অভিযোগও এদিন করেন মমতা । চালাকি করে বিজেপি ভোট মেশিন খারাপ করে দিচ্ছে বলেও এদিন তিনি অভিযোগ করেন । এদিন তিনি মোদিকে সরাসরি আক্রমণ করে বলেন, আগে ৫০টা আসনে জেতো তারপর ২৯৪ আসনের কথা বোলো । পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, আগে দিল্লি সামলান । আমার রাজ্য সরকারকে নির্দেশিকা দেওয়ার অধিকার আপনার নেই । দিল্লিতে ৬ বছর আছেন কিন্তু বাংলার জন্য কি কাজ করেছেন । তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে গিয়েও গন্ডগোল বাঁধিয়েছে । এজেন্ট নেই ধার নিচ্ছে । আর ভোটের আগে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয় দেখাচ্ছে । যেখানে দিদি বিনা পয়সায় চাল দিচ্ছে সেখানে গ্যাসের দাম ৯০০ টাকা । পাশাপাশি এদিন দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে মমতা বলেন, ন্যাকা কান্না কাঁদলে হবে না । যতক্ষণ বাক্স সিল না হচ্ছে কেউ জায়গা ছাড়বেন না । সাহস না থাকলে তৃণমূলের এজেন্ট হবেন না । এমনকি তার দাবি যেখানে এজেন্ট দিতে পারবেন না সেখানে তিনি মহিলাদের পাঠাবেন । তখনই দেখা যাবে কে ঝামেলা করে বা ভয় দেখায় । তিনি কর্মীদের আরও বলেন বিজেপিকে বলুন আমার ক্যাশ চাই না গ্যাস চাই । বিজেপির থেকে টাকা নিলেও বলুন ভোট দেব না । পাশাপাশি তার দাবি কেউ বিক্রি হবেন না । আর বিক্রি হলে তিনি তা ধরে ফেলবেন । এদিন আবারও পীরজাদা আব্বাস সিদ্দিকিকে আক্রমণ করে বলেন, সংখ্যালঘু ভাইদের থেকে একটা পচা ছেলে বেরিয়েছে আর বিজেপির থেকে টাকা নিচ্ছে । এমনকি এদিন কটাক্ষ করে মমতা বলেন, হায়দরাবাদ থেকে এল গাই, সাথে এল বোকা ভাই । তার আরও দাবি সংখ্যালঘুর ভোট কাটতে সবাইকে উসকে দিয়ে ভোটের সময়ে বেরিয়ে বড্ড বেশি সাম্প্রদায়িকতা দেখাচ্ছে । এদিন তিনি আবারও রাজ্যবাসীকে আশ্বাস দিয়ে বলেন, আপনাদের দেখার দায়িত্ব আমার । কারণ তিনি সাম্প্রদায়িকতাকে প্রশ্রয় দেন না । এদিন আবারও নন্দীগ্রামের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, নন্দীগ্রামের গদ্দার, মিরজাফররা এখন সবাই কাঁদছে ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে