টাকার বিনিময়ে কোভিড টেস্ট না করিয়ে নেগেটিভ রিপোর্ট দেবার অভিযোগ উঠল উত্তর হাওড়ার একটি নামি বেসরকারি হাসপাতাল দুজন কর্মীর বিরুদ্ধে।গোলাবাড়ি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

0
4

 চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উত্তর হাওড়ার একটি নামি বেসরকারি হাসপাতালের প্যাথলজির দুই কর্মীর বিরুদ্ধে।গত পরশু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি অভিযোগ পান।তাতে জানানো হয় টাকার বিনিময়ে হাসপাতালে কোভিড টেস্ট করতে না আসা মানুষের হয়ে কোভিড নেগেটিভ রিপোর্ট দেওয়া হচ্ছে।দুজন কর্মী এই ঘটনায় যুক্ত রয়েছেন। তারা হলেন অভিজিৎ মাইতি ও অমিত লাহা।এরা হাসপাতালের প্যাথলজিক্যাল ল্যাবের হাসপাতালের ভাইস প্রেসিডেন্ট দেবাশিস ধর জানান অভিযোগ পাবার সাথেসাথে তারা গোলাবাড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।কারন অভিযোগটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে কর্তৃপক্ষ।পুলিশি তদন্তের পাশাপাশি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তদন্ত শুরু করে।অভিযোগ পেয়ে গত পরশু প্রথমে অভিজিৎ মাইতি নামে হাসপাতালের প্যাথলজির এক কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়।এরপর  গতরাতে গ্রেফতার করা হয় আর কর্মী অমিত লাহাকে।অভিজিৎ মাইতিকে গতকাল আদালতে পেশ করে তিনদিনের জন্য নিজেদের হেফাজতে নেয় পুলিশ। আজ অমিত লাহাকে হাওড়া আদালতে পেশ করা হয়।পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে কে বা কারা কোভিড রিপোর্ট ইচ্ছাকৃতভাবে করতে চাইছে সেটা জানার চেষ্টা চলছে।জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে ধৃতদের।এই ঘটনার পেছনে বড় চক্র কাজ করছে বলে পুলিশের অনুমান।হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখছে।তবে হাসপাতালকে মেলাইন করার চেষ্টা হচ্ছে বলে মনে করছে কর্তৃপক্ষ। হাওড়া সিটি পুলিশের ডিসি নর্থ অনুপম সিং বলেন,আই এল এস হাসপাতালের সি ই ও সঞ্জয় মিশ্রা একটি অভিযোগ জানান তিন দিন আগে। ওনাদের হাসপাতালের দুজন ল্যাব কর্মী জাল করোনার রিপোর্ট তৈরি করছিল বলে জানতে পারে। এরপর হাসপাতালের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমে পুলুশ দুজনকে গ্রেফতার করেছে

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে