দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভার্চুয়াল বৈঠক প্রধানমন্ত্রীর, গরহাজির মমতা । অন্যদিকে দিল্লিতে অক্সিজেন সংকট মেটাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে জোরহাতে কাতর আর্তি দিল্লির মুখ্যমন্ত্রীর ।

0
16

ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ-এর ধাক্কায় বেসামাল কেন্দ্র থেকে প্রতিটি রাজ্য । এই পরিস্থিতিতে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে শুক্রবার ভার্চুয়াল বৈঠক করলেন দেশের প্রধানমন্ত্রী । এদিনও মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে প্রধানমন্ত্রীর ভার্চুয়াল বৈঠকে গরহাজির থাকলেন এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । তার পরিবর্তে রাজ্যের তরফে বৈঠকে হাজির ছিলেন রাজ্যের মুখ্যসচিব এবং স্বাস্থ্যসচিব । এদিনের বৈঠকে দেশের প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মহারাষ্ট্র, কেরল, কর্ণাটক, গুজরাত, রাজস্থান, দিল্লি, পঞ্জাব সহ বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা এবং দেশের অক্সিজেন প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির প্রতিনিধিরাও । এদিনের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে রাজ্যগুলির বর্তমান করোনা পরিস্থিতি ও দেশ জোড়া অক্সিজেন সঙ্কট নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয় । প্রধানমন্ত্রী এদিন সকলের কাছে আবেদন জানিয়ে বলেন, সবাই মিলে একযোগে মোকাবিলা করতে হবে এই মারণ ভাইরাসের । পাশাপাশি দেশজুড়ে অক্সিজেনের ঘাটতি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রেল ও বিমান পরিষেবাকে কাজে লাগানো হচ্ছে যাতে যত দ্রুত সম্ভব অক্সিজেন ট্যাঙ্কারগুলি পৌঁছে দেওয়া যায় । এমনকি প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ ওষুধ ও অত্যাবশ্যকীয় সামগ্রীর কালোবাজারি বন্ধ করতে বিশেষ নজরদারির উপর জোর দেওয়া হয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী । একই সঙ্গে লকডাউনের আশঙ্কা করে বেশি বেশি করে পণ্য কিনে মজুত করার প্রবণতার উপরও বিশেষ নজর রাখার পরামর্শ এদিন দেন নরেন্দ্র মোদি । এর পাশাপাশি রাজ্য গুলিকে কোভিড বিধি সংক্রান্ত প্রচার ও হোর্ডিং বাড়ানোরও পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী । এদিনের বৈঠকে মোদি আরও জানান ইতিমধ্যে বিনামূল্যেই বিভিন্ন রাজ্য গুলিতে ১৫ কোটি ভ্যাকসিন পাঠিয়েছে কেন্দ্র । অতিমারী আবহে দেশের হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রতি আরও বেশি যত্নবান হওয়ার কথাও এদিনের বৈঠকে বলেন প্রধানমন্ত্রী । এদিন প্রধানমন্ত্রীর সাথে বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের ভার্চুয়াল বৈঠকে সবচেয়ে সরব হন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল । এদিন তিনি হাত জোড় করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে অক্সিজেন সংকট থেকে মুক্তির জন্য দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী কাতর আর্তি জানিয়ে বলেন, দিল্লিতে অক্সিজেন ট্যাঙ্ক নিয়ে আসা গাড়িগুলোকে শহরের ঢোকার পথে যাতে অন্য রাজ্য না আটকায় বা দিল্লির জন্য আসা অক্সিজেন অন্য রাজ্য আটকে দিলে সেই পরিস্থিতি মোকাবিলা করার ব্যাবস্থা করে দিতে হবে । তার দাবী দিল্লিতে করোনা রোগীরা শুধু মাত্র অক্সিজেনের অভাবে মারা যাচ্ছেন । প্রধানমন্ত্রী দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে দিল্লির পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবে । এমনকি এদিন পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশা থেকে আকাশপথে দিল্লিতে অক্সিজেন আনার ব্যবস্থা করার কথাও বলেন কেজরিওয়াল । অন্যদিকে দেশে করোনা পরিস্থিতি ও অক্সিজেন সঙ্কট নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে বিঁধে রাহুল গাঁধী ট্যুইট করে বলেন, করোনার কারণে অক্সিজেনের ঘাটতি হতে পারে । কিন্তু অক্সিজেন সরবরাহে ঘাটতি এবং আইসিইউ-র অভাবে অনেক রোগীর মৃত্যু হচ্ছে । অপরদিকে করোনা পরিস্থিতির কারণে ভারতের যাত্রীবাহী বিমানের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করল কানাডা সরকার । ৩০ দিনের জন্য এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে । এবিষয়ে কানাডার পরিবহণমন্ত্রী জানান, গতকাল থেকেই ভারতীয় বিমানকে কানাডার আকাশ সীমায় ঢুকতে নিষেধ করা হয়েছে ।এমনকি ভারতের পাশাপাশি পাকিস্তানের বিমানের উপরও নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কানাডা সরকার ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে