ভোটের মাঝেই রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ৩০০০, তাই সরকারি দফতরে ফের ৫০ শতাংশ হাজিরার নির্দেশ ।

0
55
Residents stand in a queue to register their names as a health worker (R) wearing Personal Protective Equipment (PPE) suit collects a swab sample from a woman to test for the Covid-19 coronavirus, at a primary health centre in Hyderabad on September 4, 2020. (Photo by NOAH SEELAM / AFP)

ভোটের মাঝেই তিন হাজারের কাছাকাছি চলে গেল রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা । রাজ্যে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় রাজ্যের সরকারি দফতরে ফের ৫০ শতাংশ হাজিরার নির্দেশ । গত ২৪ ঘণ্টা সংক্রমিত হয়েছেন ২ হাজার ৭৮৩ জন। অর্থাৎ আক্রান্তের সংখ্যা তিন হাজারের কাছাকাছি চলে গিয়েছে। এই গতিতে চলতে থাকলে ৩ হাজার পেরানো সময়ের অপেক্ষা বলে মত বিশেষজ্ঞদের । বৃহস্পতিবার রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ২৭৮৩ জন। যা কিনা আগের দিনের তুলনায় প্রায় ৪০০ বেশি। করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের মাঝেই রাজ্যে চলছে ভোট উৎসব। প্রার্থীদের মিছিল থেকে সভা-সমাবেশে মানুষের ভিড় জমছে। এই ছবিই আশঙ্কিত করছে বিশেষজ্ঞদের। কারণ, থেমে নেই করোনা। দৈনিক সংক্রমিতের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ২৭৮৩। মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৬,১০৯। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক কলকাতায়। তারপরে উত্তর ২৪ পরগনা ও হাওড়া। কলকাতায় গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭১৬ জন। উত্তর ২৪ পরগনা ও হাওড়ায় সংক্রমিতের সংখ্যা যথাক্রমে ৫৯৫ ও ২২১। এদিন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে তৈরি থাকতে নির্দেশিকা জারি করেছে নবান্ন। বলা হয়েছে, আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে কোভিড মোকাবিলায় চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিতে হবে। রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ। সতর্ক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার। পরিস্থিতি সামাল দিতে নয়া নির্দেশিকা দিতে চলেছে নবান্ন। জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারি দফতরে আবার ৫০% কর্মী নিয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে করোনা সংক্রমণ আবার বাড়ছে, তাই রাজ্য প্রশাসন ৫০% কর্মী দিয়ে সরকারি দফতর চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রশ্ন উঠছে তাহলে কী বাংলা আবার একটা লকডাউনের দিকে এগোচ্ছে? রাজ্যের ভোটযুদ্ধের মাঝেই চোখ রাঙাচ্ছে করোনা। পরিস্থিতি আরও খারাপ হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত বছর করোনা সংক্রমণের সঙ্গে তাল মেলাতে প্রতিটি অফিসে হাজির পরিমাণ ৫০ শতাংশ করার নির্দেশ দিয়েছিল রাজ্য। সেই পথেই ফের হাঁটতে পারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসন। ইতিমধ্যেই সেচ দফতর, কৃষি দফতরের মতো বিভাগগুলিতে ৫০ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ করার নির্দেশ জারি করা হয়েছে। আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে এই নির্দেশ কার্যকর করা হবে বলে সূত্রের খবর। এদিকে একই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতা হাইকোর্টও। কলকাতা হাইকোর্ট জানিয়েছে নির্দিষ্ট সংখ্যক মামলা তালিকাভুক্ত করে প্রতিদিন মামলাকারী ও আইনজীবীদের সংখ্যা কমিয়ে আনতে হবে। আগামী ১২ থেকে ৩০শে এপ্রিল এই রাস্তাতেই হাঁটতে চলেছে কলকাতা হাইকোর্ট। শুধু কলকাতা হাইকোর্টই নয়, আন্দামান ও জলপাইগুড়ির সার্কিট বেঞ্চেও এই নির্দেশ জারি করা হয়েছে। সম্প্রতি শিয়ালদহ আদালতের পাঁচজন আইনজীবী একসঙ্গে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাই সতর্কতা মূলক ব্যবস্থা হিসেবে এই নিয়ম মেনে চলতে হবে। তবে আদালত বন্ধ রাখা হবে কীনা, সেই বিষয়ে শুক্রবারই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে