চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালে একই ওয়ার্ডে সাধারণ রোগীর সাথে করোনা রোগী ।

0
5

করোনা সংক্রমণ কমাতে যেখানে প্রশাসন তৎপর আর সেখানেই রবিবার চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালে দেখা গেল ভিন্ন চিত্র । এখানে শুধু ওয়ার্ডে তার সাথে পরিবারের লোকজন থাকছেনই না বরং তার পরিচর্চাও করছেন । আর তাতেই বেড়েছে সংক্রমণের আশঙ্কা ৷ চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে দিন তিনেক আগে তিন তলায় সারি ওয়ার্ডে ভর্তি হয়েছিলে এক যুবক । কিন্তু করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভি আসার পরেও তাকে অন্যত্র কোভিড হাসপাতালে স্থানান্তরিত না করে উল্টে সেই ওয়ার্ডেই রাখা হয়েছে । এমনকি সেই ওয়ার্ডে তার সাথে অন্যান্য রোগীদের পাশাপাশি থাকছে কোভিড আক্রান্ত যুবকের পরিবারের লোকেরাও । যদিও রাজ্যের অন্যান্য সমস্ত মেডিক্যাল কলেজ ও সরকারি হাসপাতালেই সারি ওয়ার্ড বা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে যাঁরা ভর্তি হন, তাদের জন্য আলাদা ওয়ার্ড করা হয়েছে । এমনকি করোনা সংক্রমণ ধরা পড়লে নিয়মমাফিক রোগীকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় কোভিড হাসপাতালে । এই নিয়মের ব্যাতিক্রম নয় চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালেও । কিন্তু তা সত্বেও এই ব্যাতিক্রম ঘটেছে । এক্ষেত্রেও চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালে ভর্তি কোনও রোগীর করোনা পজিটিভ হলে তাকে স্থানান্তরিত করার কথা সেফ হোমে কিংবা ব্যান্ডেল ইএসআই কোভিড হাসপাতালে । কিন্তু এক্ষেত্রে তেমনটা না করায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে । অন্যদিকে এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়ে চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালের সুপার জানান, রবিবার ছুটির দিন বলেই হয়ত এমনটা হয়েছে ৷ আক্রান্তের সঙ্গে থাকা কখনই উচিত নয় ৷ পাশাপাশি কী কারণে এই ঘটনা ঘটেছে সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলেও তিনি জানান । তার আরও দাবি করোনা আক্রান্ত ঐ যুবক এই হাসপাতালেরই এক নার্সের ছেলে হওয়ায় বারবার বলা সত্ত্বেও তাকে কোভিড হাসপাতালে পাঠানো যায়নি । এমনকি রোগী সেফ হোমে যেতেও রাজি নন । তবে খুব দ্রুত রোগীকে জোর করেই হাসপাতাল থেকে সরানোরও আশ্বাস দিয়েছেন চুঁচুড়া ইমামবাড়া সদর হাসপাতালের সুপার ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে