চতুর্থ দফায় শীতলকুচির পর এবার পঞ্চম দফায় দেগঙ্গায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠল । যদিও অভিযোগ অস্বীকার কেন্দ্রীয় বাহিনীর ।

0
21

রাজ্যে পঞ্চম দফার ভোটেও ফিরল শীতলকুচির আতঙ্ক । আবারও কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে উঠল গুলি চালানোর অভিযোগ । তবে দেগঙ্গায় কাউকে উদ্দেশ্য করে নয়, বাহিনী শূন্যে গুলি চালিয়েছে বলেই দাবী স্থানীয় বাসিন্দাদের । যদিও কেন্দ্রীয় বাহিনী স্থানীয় বাসিন্দাদের এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে । কমিশনের রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিভ্রান্তি ছড়াতেই এমন অভিযোগ । কোথাও কোনও গুলি চলেনি । স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এদিন উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গা বিধানসভার ২১৫ নম্বর বুথের প্রায় ৫০০ মিটার দূরে একটি আমবাগানে বসে গল্প করছিল এলাকারই কয়েকজন । কিন্তু সেই সময় কেন্দ্রীয় বাহিনীর কয়েকজন জওয়ান সেখানে এসে তাদের কোনও কথা না শুনেই তাদের ধাওয়া করে । এরপর তারা ছুটে পালানোর সময় বাহিনীর জওয়ানরা প্রথমে মাটিতে ও পরে শূণ্যে প্রায় ৫ রাউন্ড গুলি চালায় । এমনকি সেই সময় পুলিশ গিয়েও তাদের মারধোর করে বলে তারা জানান । এই ঘটনায় প্রায় ৭ জন গ্রামবাসী আহত হয়েছেন । এরপরই বুথের সামনে গিয়ে বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় বাসিন্দারা । পাশাপাশি এদিন দেগঙ্গার ৮১ নম্বর বুথের সোহাইস্বেতপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ভোটারদের মারধোরের অভিযোগও উঠেছে । অন্যদিকে শীতলকুচি কাণ্ডের পর কমিশনের তরফে স্পষ্ট করে বলা হয়েছিল, কোথাও কোনও সমস্যা হলে প্রথমেই গুলি চালানো যাবে না । জনতার ভিড় ছত্রভঙ্গ করতে প্রথমে লাঠি চালাতে হবে । তারপর কাঁদানে গ্যাস চালাতে হবে । তাতেও কাজ না হলে শুন্যে গুলি চালাতে হবে । শেষ পর্যন্ত তাতেও কাজ না হলে হাঁটুর নিচে গুলি চালানো যেতে পারে । দেগঙ্গায় ঠিক কি  ঘটেছিল তা খতিয়ে দেখতেই কমিশন রিপোর্ট চেয়েছে ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে